শিরোনামঃ
গাজীপুরে যৌ’ন উত্তে’জক ট্যাব’লেট খে’য়ে দম্প’তির মৃ’ত্যু যুবককে অপহরণ করে পটুয়াখালীতে জোরপূর্বক বিয়ে করলেন তরুণী সাবেক মন্ত্রী খন্দকার মোশাররফ হোসেনের এপিএস গ্রেফতার নগরকান্দায় ৭ টি চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধারসহ গ্রেফতার-৭ এস এ পরিবহন কুরিয়ার সার্ভিসের ঠিকানা এবং যোগাযোগ নাম্বার । SA Paribahan Courier Service Contact Nomber ভারতের বরফের রাজ্য সিকিম থেকে ৫ দিন ৬ রাতে মাত্র ৭,৫০০ টাকায় ঘুরে আসুন। এস বি সুপার ডিলাক্স টিকেট কাউন্টার নাম্বর । SB Super Deluxe Contact Ticket Number আগমনী এক্সপ্রেস এর কাউন্টার সমুহের নাম্বর – Agomoni Express Counter Number গ্রামীন ট্রাভেলসের কাউন্টার নাম্বার সমুহ । Grameen Travels Counter Contact Number ন্যাশনাল ট্রাভেলসের কাউন্টার নাম্বার সমুহ । National Travels Counter Contact Number
ফরিদপুরে আবেশ ছড়াচ্ছে চোখ জুড়ানো কাশবন

ফরিদপুরে আবেশ ছড়াচ্ছে চোখ জুড়ানো কাশবন

ফরিদপুরে আবেশ ছড়াচ্ছে চোখ জুড়ানো কাশবন

শরৎকালকে বলা হয় ঋতুর রানি।

জেলা শহড় থেকে যেভাবে যেতে হবেঃ

ফরিদপুর সদর উপজেলা থেকে প্রথমে গজারিয়া বাজার, তারপর হাট কৃষ্ণপুর বাজার, বাজারের ভেতর দিয়ে যেতে হবে ভাষানচর নতুন বাজার, এরপর জয়বাংলা বাজার,এরপরে, জামতলা বাজার,খেজুরতলা বাজার,গাবতলা বাজার,মণিকোঠা বাজার, আকোটের চর বাজার, নদী পার হলেই গুচ্ছগ্রাম একটু সামনেই কাশবন। জেলা শহর থেকে এর দূরত্ব প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ কিলোমিটার।

এমন বৃস্তিন্ন কাশফুল ফরিদপুর জেলার আর কোথাও খুঁজে পাওয়া যাবে না। বিশাল এই চরজুড়ে ছেয়ে গেছে কাশবন। সাদা রঙের কাশফুলে ভরে উঠেছে কাশবন। দূর থেকে দেখে মনে হবে বিশাল আকৃতির কোন সাদা বিছানার চাদর বিছিয়ে রাখা হয়েছে।

শুক্রবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মাঠের পর মাঠ যতদূর চোখ যায় শুধু কাশবন আর কাশফুল। করোনা মহামারিতে গ্রাম কিংবা শহরের ক্লান্তি দূর করে প্রশান্তির মায়াবি আবেশ ছড়িয়ে দিচ্ছে দিগন্তজোড়া কাশফুল। সেই কাশফুলের রাজ্যে গিয়ে ছুয়ে দেখতে বা গাঁ ভাসাতে ভিড় জমাচ্ছে অনেকেই। সোশ্যাল মিডিয়ায় অন্যদের দেখানোর জন্যও স্মৃতি হিসেবে ক্যামেরাবন্দি করছে নিজেদের কাছে রেখে দিচ্ছে, ছবি আর সেলফি তুলে।

দুপুর গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বাড়তে থাকে মানুষের আনাগোনা, জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে টিম সহ বন্ধু বান্ধাব ও পরিবার নিয়ে অনেকেই ঘুরে এসেছে, তাদের কাছে জানতে চাইলে জানায় ফরিদপুর কেন্দ্রীক কিছু ফেসবুক গ্রুপেরর মাধ্যমে স্থানটির সন্ধান পাই, কাছ থেকে দেখতে শহড় থেকে ছুটে আসা। ঘুরতে আসা অনেকেই জানান, কালের পরিক্রমা ও আধুনিকতার ছোঁয়ায় ফরিদপুর থেকে হারাতে বসেছে শরতের কাশফুল। একটা সময় ফরিদপুরের বিভিন্ন এলাকায় কাশবনের কাশফুলগুলো দোল খেতো মৃদু বাতাসে। এখন ফরিদপুরের গ্রাম-গঞ্জে বিচ্ছিন্নভাবে থাকা যে কয়টি কাশফুল চোখে পড়ে সেগুলোও হারিয়ে যাচ্ছে। সময়ের সঙ্গে তাল মেলাতে গিয়ে সেখানে এখন তৈরি হয়েছে মৌসুমি ফসলের ক্ষেত।

তারা আরও জানায় একই সঙ্গে আমরা নদী ও কাশফুল দুটি সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারছি কিন্তু দুঃখের বিষয় নদীর পারে গিয়ে দেখতে পেলাম স্রোতে জমি ভেঙ্গে হারিয়ে যাচ্ছে এখন যদি বাধ না দেয় হয় পুরো অঞ্চল নদীগর্ভে হারিয়ে যাবে,
প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করছে তারা।

তবে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ঘুরতে যাওয়া পর্যটকমহলকে মাথায় রাখতে হবে কাশফুলের মধ্যে রাসেল ভাইপার শা’পের চলাচল থাকায় সর্বোচ্চ সতর্ক থাকতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বশেষ খবর

©2020 SomoyerKhbor All rights reserved ®

Design BY NewsTheme