শিরোনামঃ
ভাষানচর হামিদ নগর উচ্চ বিদ্যালয়ের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত অস্ত্র মামলায় ফরিদপুরে রুবেল ও তার সহযোগীর ১৭ বছরের কারাদণ্ড বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে যাওয়া আরেক মুসল্লির মৃত্যু ফরিদপুরে স্যুটকেসে লাশ উদ্ধারের হত্যাকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে বাজারে আসছে পারমানবিক ব্যাটারি, এক চার্জে স্মার্টফোন চলবে ৫০ বছর ফরিদপুর টু গুলিস্তান গোল্ডেন লাইন বাসের নতুন সময়সূচী- নির্বাচিত হতে পারলে প্রাইমারী স্কুল করে দেবো – এ.কে আজাদ পথচারীকে বাচিয়ে প্রান নিলো ভ্যান চালকের রাজবাড়িতে বাড়ি লিখে না দেওয়ায় শাশুড়িকে মারধর করলো পুত্রবধূ পদ্মা সেতু হয়ে “সুন্দরবন ও বেনাপোল এক্সপ্রেস” ট্রেনের সময়সূচি
অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ দুর্ঘটনার রোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন

অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ দুর্ঘটনার রোমহর্ষক বর্ণনা দিয়েছেন

অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ

ছোট পর্দা ও ওটিটি প্ল্যাটফর্মের জনপ্রিয় মুখ তাসনিয়া ফারিণ। গত শুক্রবার (২ ডিসেম্বর) রাজধানীর যমুনা ফিউচার পার্কের চলন্ত সিঁড়িতে মর্মান্তিক দুর্ঘটনার শিকার হন তিনি। হাসপাতালে চিকিৎসা শেষে বর্তমানে বাসায় বিশ্রামে আছেন এ অভিনেত্রী। কিন্তু দুর্ঘটনার ঘোর কাটছে না তার।

ফারিণের মতে, দুর্ঘটনার সময় তার বাবা-ভাই তার সাথে না থাকলে সে হয়তো বাঁচতে পারতো না। এমনকি প্রাণে বাঁচলেও হয়তো তার পা থাকতো না কিংবা কখনও মাতৃত্বের স্বাদ পেতেন না।

শনিবার (৩ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ সোশ্যাল মিডিয়ায় ফিউচার পার্ক দুর্ঘটনার একটি হতাশাজনক বর্ণনা দিয়েছেন।

হুবহু তুলে ধরা হলো তার স্ট্যাটাসটি –

গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে যমুনা ফিউচার পার্কের প্রথম তলা থেকে দোতলায় যাওয়ার সময় গেট দিয়ে প্রবেশ করা প্রধান এসকেলেটরে (চলন্ত সিঁড়ি) আমার দুর্ঘটনা ঘটে। আমি জানি না এটা অ্যালুমিনিয়াম নাকি স্টিলের সিঁড়ির নিচে, চাদরটা খুলে গেল এবং ধারালো ধার আমার পায়ে আঘাত করল। আমি সিঁড়ির ডান দিকে ছিলাম। এবং এটি ঊর্ধ্বমুখী ছিল। আমার পরনের প্যান্ট ছিঁড়ে গেছে এবং পায়ে বিভিন্ন জায়গায় গভীর দাগ রয়েছে যা পরে বুঝতে পেরেছি।

কিন্তু সেই মুহূর্তটার একটাই ছবি বারবার আমার মাথায় বারবার ফিরে আসে যে আমি কিছু বুঝে ওঠার আগেই সবাই জোরে চিৎকার করে উঠলো আর দেখলাম একটা পা ডান পায়ে আঁচড়ে গেছে আর একটা পা বাম পায়ের মাঝখানে চলে গেছে আর চলন্ত সিঁড়িটাও আমাকে ধাক্কা দিয়েছে। . আরও ঠেলে দিচ্ছে।

আমার ভাই যদি গতকাল এক সেকেন্ডেরও কম সময়ের মধ্যে আমাকে পেছন থেকে না টেনে না আনতেন বা আমার বাবা আমাদের দুজনকে ঠেলে না দিতেন, আমি জানি না আমি আজ এই স্ট্যাটাস লিখতে বেঁচে থাকতাম কিনা। হয়তো থাকতাম, কিন্তু আমার পা থাকতো না বা আমি কখনো মা হতে পারতাম না। সেই পরিস্থিতির ভয়াবহতা হয়তো কথায় বা লেখায় বোঝানো সম্ভব নয়। আমি নামার পর কয়েক সেকেন্ডের কিছুই মনে নেই। সম্বত ফিরে এসে দেখি আমার প্যান্ট হাঁটুর উপর থেকে ছিঁড়ে গেছে এবং আমার পুরো পা জ্বলছে। ততক্ষণে অনেক লোক জড়ো হয়েছে।

মজার ব্যাপার হলো, এই ঘটনাকে আমি দুর্ঘটনা বলে মানতে চাই না। কারণ আমার সাথে এই ঘটনার অন্তত পনের মিনিট আগে অন্য একজনের সাথে একই ঘটনা ঘটেছিল। তার পায়ের মাংস ভেদ করে পাতার কোণে ঢুকে গেল। তিনি নিজেও অনেকক্ষণ দাঁড়িয়ে থেকে মানুষকে সতর্ক করতেন এবং দায়ী কাউকে খুঁজতেন। কাউকে না পেয়ে হেল্প ডেস্কে গিয়ে শেষ করলাম এবং এরই মধ্যে আমার সাথে এই ঘটনা ঘটলো। আরও একজন শিকারের সন্ধান পাওয়া গেছে।

আমার চিৎকারে অবশেষে একজন স্টাফ এসে ম্যানেজারকে অনেকবার ডেকে পাঠায়। ততক্ষণে অনেক লোক জড়ো হয়ে গেছে এবং যন্ত্রণার চেয়ে অপমানই বেশি অনুভূত হয়েছে। সেখানে কিছু সিঙ্ক করার পরিবর্তে, আমি অনুভব করেছি যে এটি ঠান্ডা মাথায় সমাধান করা দরকার। তাই আমি বলার পর দুই কর্মচারী আমাদের তিনজন আহত ব্যক্তিকে এবং তাদের সাথে সবাইকে বেসমেন্ট 1 এ নিয়ে গেল। আমরা ভেবেছিলাম দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হবে। আশ্চর্যের বিষয়, এত বড় মলে কোনো অ্যাম্বুলেন্স বা ফার্স্ট রেসপন্ডার নেই!

পনেরো-বিশ মিনিটে ওরা এই ফার্মেসিকে ওই ফার্মেসি বলে। কেউ দোকান ছাড়তে পারবে না। অবশেষে আধাঘণ্টা পর কেউ এসে দুজনকে চিকিৎসা দেয়। কিন্তু মহিলা ডাক্তার ছাড়া আমার চিকিৎসা সম্ভব ছিল না। এদিকে আমি আমার ভাইকে একজোড়া ট্রাউজার কিনতে পাঠালাম।

যমুনা ফিউচার পার্ক কর্তৃপক্ষের ভাষ্যমতে,

অনেকের কারণেই এই দুর্ঘটনা! এর মানে কি আপনি আগে থেকেই জানতেন? অথবা আপনি কি বুঝতে পারেননি যে এটি ইতিমধ্যেই ক্ষমতার চেয়ে বেশি লোড নিয়ে এই অবস্থায় ছিল? আপনি কেন কোন ব্যবস্থা নিলেন না ! এমন ঘটনা অন্য একজনের সাথে
ঘটার পরও ? এসকেলেটরের দায়িত্বে থাকা কাউকে ফোন করতে বলা হলে তিনি আসেননি। এবং আমার পরিস্থিতিতে তারা আমাকে চা এবং কফি অফার করে, যেখানে আমার বসার কোনও অবস্থা নেই।

আরও পড়ুনঃ চলন্ত সিঁড়িতে পায়ে রড ঢুকে গুরুতর আহত তাসনিয়া ফারিণ

যাই হোক, আমরা কাপড় পাল্টে আমাদের গাড়িতে এভারকেয়ার ইমার্জেন্সিতে গেলাম। ড্রেসিং, সেলাই, এক্স-রে, ইনজেকশনের পর আমাকে রাত 12 টায় ছেড়ে দেওয়া হয়। তাদের একজন কর্মকর্তা হাসপাতালে আসেন, কারণ আমরা বলি। বিলের প্রসঙ্গ উঠলে তারা বলে, ‘দেব কেন?’ তোমার দু-চার টাকা আমার লাগবে না, কিন্তু মানবতা নেই? যেখানে আপনি নিজেই দোষ স্বীকার করেছেন এবং আমি আপনার কাছে কোন ক্ষতিপূরণও চাইনি। একটু জরুরী বিল দেওয়ার মানসিকতা নেই? তাদের মতে, এটা বিচার করা হচ্ছে। তারা অভ্যন্তরীণভাবে একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ (!) তদন্ত পরিচালনা করবে।

আজ আমার জীবন হোক বা অন্য কারো জীবন হোক, তাদের পরোয়া নেই। সারারাত আমার ঘুম হয়নি। মানসিকভাবে আঘাতপ্রাপ্ত। আমার ভাই আজ যদি আমার পিছনে না থাকত বা আমাকে ধরতে একটু দেরি করত তাহলে কি হত তা আমি ভাবতেও চাই না। আল্লাহ যেন কাউকে জীবনে এমন পরিস্থিতিতে না দেন। এবং আপনি যে লিফট বা এসকেলেটরই ব্যবহার করুন না কেন, নিজের সতর্কতা অবলম্বন করুন।

আমি শারীরিকভাবে ফিট। ডাক্তার পাঁচদিন বেড রেস্ট ও অ্যান্টিবায়োটিক দিয়েছেন। বোন আহত হয়নি। বসতে পারে না এবং ডান পাশে শুতে হবে। কিন্তু আমি জানি না এই মানসিক আঘাত কখনো দূর হবে কিনা। সবচেয়ে সাধারণ অনুভূতি হতাশা। মানুষ মারা গেলে বিচার পায় না। আমি বেঁচে আছি, আমার বিচার কি হবে?

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




সর্বশেষ খবর

©2020 SomoyerKhbor All rights reserved ®

Design BY NewsTheme